করোনা ভাইরাস এর ওষুধ কি কি ? এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

করোনা এবং ওষুধ” খুবই জরুরী এবং গুরুত্বপূর্ণ দু’টি বিষয় নিয়ে আজকের এই লেখাটি। করোনা ভাইরাস এর ওষুধ নিজের ও পরিবারের সুরক্ষার জন্য লেখাটি পুরোটা পড়ার অনুরোধ করছি।


প্রথমত, নাপা নিয়ে কিছু কথা বলি। ‘Napa’ হচ্ছে একটি ব্র‍্যান্ড নেইম। মানে নাপা একটি ওষুধের নাম মাত্র; যেটি বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস্ লিমিটেড উৎপাদন ও বাজারজাতকরণ করে থাকে। মূলত এটির জেনেরিক বা মূল নাম “Paracetamol.” এই জেনেরিকের বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস্ লিমিটেডের অনেকগুলো ওষুধ বাজারে বিদ্যমান।

করোনা ভাইরাস এর ওষুধ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

যেমনঃ Napa, Napa Rapid, Napa ONE, Napa Extend, Napa DT এবং Napa IV. যাইহোক, ইদানীং জানিনা দেশজুড়ে কেন নাপার সংকট সৃষ্টি হয়েছে। কয়েকদিন থেকে শুনে আসছিলাম, নাপার সংকটটি ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় প্রকট আকার ধারণ করেছে। ওষুধের ফার্মেসীগুলোতে নাপা নাকি পাওয়া যাচ্ছেনা। আজ ঢাকাতে তাই একটি ফার্মেসিতে এই বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলাম। তারা জানালেন, ঢাকাতেও অনেক জায়গায় নাপার এই সংকট সৃষ্টি হয়েছে। কে এবং কেন এই সংকট সৃষ্টি করলো, সেটি কারও জানা নেই।

যাই হোক, গ্রামের মানুষ অনেকেই এটা বোঝেন না যে, নাপা শুধু একটি কোম্পানির ওষুদের নাম। এছাড়াও এই একই ওষুধ আরও অন্য অনেক ভালো ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিরও রয়েছে। যেমনঃ নাপা না পাওয়া গেলে তার পরিবর্তে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী Square Pharmaceuticals Limited-এর ACE, ACE XR বা Ace Power খেতে পারেন। এছাড়া Incepta Pharmaceuticals Ltd.- এর Reset বা Reset ER খেতে পারেন। Opsonin Pharma Limited-এর Renova বা Renova XR খেতে পারেন। Acme Laboratories Ltd.-এর Fast বা Fast XR খেতে পারেন।

এরকম আরও ভালো কোম্পানির ওষুধ রয়েছে বাজারে। উপরের এগুলো সবই ভালো কোম্পানির, ভালো ওষুধ, যেগুলো নাপার পরিবর্তে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী আপনারা জ্বর বা ব্যাথার জন্য খেতে পারেন।
এবার দ্বিতীয় প্রসঙ্গে আসি। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনি জানেন কি বর্তমানে যে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বা ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট, সেটি অধিকাংশ ক্ষেত্রে শরীরের রক্তকে জমাটবদ্ধ (Coagulation) করে ফেলছে? আমরা ইদানীং শুনছি যে, অনেকেই স্ট্রোক করে বা হার্ট অ্যাটাক করে মৃত্যুবরণ করছেন।

এটা রক্ত জমাট বাঁধার কারণেই হয়ে থাকে। এটির একটি কারণ হতে পারে নোভেল করোনা ভাইরাস। দেখা যাচ্ছে, একজনের হঠাৎ করেই জ্বর আসলো, বুকে হালকা ব্যথা অনুভব করলো এবং ২-৩ দিনের মধ্যেই, করোনা টেস্ট করানোর পূর্বেই, তিনি মৃত্যুবরণ করলেন। আবার কিছু ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, অনেকের কোন উপসর্গ নেই, শুধু জ্বর আছে।

যেমনঃ সকালে হালকা জ্বর অনুভূত হলো, দুপুর নাগাদ জ্বরটি ভয়াবহ রুপ ধারণ করলো এবং ২৪ ঘন্টার ভিতরেই রোগীর মৃত্যু ঘটলো। এসব ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, শরীরে রক্ত সঞ্চালনকারি নালীগুলোতে রক্ত জমাট বাধার কারণে, রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত ঘটে এবং যার ফলে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোক হয়ে রোগী মৃত্যুবরণ করেন। এসব বেশি ঘটে তাদের ক্ষেত্রেই, যাদের কো-মরবিডিটি বা দীর্ঘস্থায়ী রোগ

যেমনঃ উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা, কিডনির সমস্যা ইত্যাদি রয়েছে। কিছুক্ষেত্রে আবার কমবয়সীদের মাঝেও এরকমটা ঘটতে দেখা যাচ্ছে। তাই, শুধু শ্বাসকষ্ট নয়, করোনার অন্যান্য উপসর্গগুলোকেও হেলাফেলা করার কোন সুযোগ নেই।

প্রাথমিক অবস্থায়, অর্থাৎ যেদিন জ্বর আসলো বা কাশি হলো বা সর্দি বা শরীর ব্যথা বা করোনার অন্যান্য লক্ষণ মৃদুভাবে প্রকাশ পেলো, সেদিন থেকেই যদি সঠিক ট্রিটমেন্ট শুরু করা যায়, তবে মৃত্যুঝুঁকি অনেকাংশেই কমানো সম্ভব। তবে সেটি ফার্মেসিতে গিয়ে নিজ থেকে ওষুধ কিনে খাওয়ার মাধ্যমে নয়, ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে খেতে হবে। জ্বর আসবে, নাপা খাবো, আর ভালো হয়ে যাবো, সেই দিন আর এখন নেই।


যেকোনো শারীরিক বা মানসিক সমস্যায় ভূরুঙ্গামারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তারগণের সাথে যোগাযোগ করুন। যদি তা তাৎক্ষণিকভাবে সম্ভব না হয়, তবে ডোনেট ফর ভূরুঙ্গামারীকে জানান। আমরা সকলে মিলে চেষ্টা করবো যাতে প্রাথমিক অবস্থাতেই আপনাকে ঘরে রেখেই সঠিক ট্রিটমেন্টের মাধ্যমে সুস্থ করে তোলা যায়। ডোনেট ফর ভূরুঙ্গামারী একমাত্র সংগঠন, যেটি সরাসরি ভূরুঙ্গামারী উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ এবং ভূরুঙ্গামারী উপজেলা করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির সাথে করোনার শুরু থেকেই এটির নিয়ন্ত্রণে এবং করোনা রোগীদের জরুরী স্বাস্থ্যসেবা প্রদানে, প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে কাজ করে যাচ্ছে। এটা বলে রাখা ভালো যে, সকলের পরিচয় অবশ্যই গোপন রাখা হবে।

আমরা কি COVID-19 এর প্রতিকার পাব?

তাই ভয়ের কিছু নেই। ভয়ের চেয়ে কিন্ত জীবনের মূল্য বেশি। তাই অবহেলা না করে আমাদেরকে যতো দ্রুত সম্ভব জানান। অন্তত আমরা চেষ্টাটা করতে পারবো। ঘরে এভাবে বসে বসে মৃত্যুর চেয়ে, সঠিক ট্রিটমেন্ট নিয়ে সুস্থ হওয়াটা জরুরী। আমরা আমাদের এই প্রিয় উপজেলায় করোনার উপসর্গ নিয়ে আর একটিও মৃত্যু দেখতে চাইনা।


পরিশেষে, সকল বিত্তবান ভাই ও বোনদের অনুরোধ করবো, আমাদেরকে ফিন্যান্সিয়ালি একটু সাপোর্ট দেওয়ার জন্য। এমনিতেই করোনা নিয়ে কাজ করাটা অনেক রিস্কি। তার মধ্যে করোনার চিকিৎসা প্রদানও অনেক ব্যয়বহুল। আপনারা সহযোগিতা না করলে কে করবে বলুন? উপজেলাটাতো আমাদেরই তাইনা? এখানেই আমরা জন্মগ্রহণ করেছি। তাই আপনাদের একটু সহযোগিতাই পারে অনেকগুলো প্রাণ রক্ষা করতে।


স্বাস্থ‍্য সচেতন ও নিরোগ থাকতে স্বাস্থ‍্য তথ‍্য জেনে ও তা মেনে চলুন।সুস্থ ও সুন্দর জীবন যাপন করুন। করণা বিষয়ক সকল তথ‍্য ও পুষ্টিতথ‍্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন। সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন।

নতুন নতুন মোবাইল এর আপডেট পেতে ভিজিট করুন

One thought on “করোনা ভাইরাস এর ওষুধ কি কি ? এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *